বেগম খালেদা জিয়া

বেগম খালেদা জিয়া (জন্ম: আগস্ট ১৫ ১৯৪৫[১][ক]), জন্মগত নাম খালেদা খানম পুতুল, একজন বাংলাদেশি রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব যিনি ১৯৯১-১৯৯৬ সাল এবং ২০০১-২০০৬ সাল পর্যন্ত তিনি প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি বাংলাদেশের প্রথম মহিলা প্রধানমন্ত্রী ও প্রধানমন্ত্রী রূপে মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশগুলোর মাঝে দ্বিতীয় মহিলা সরকারপ্রধান (বেনজির ভুট্টোর পর)।[৪][৫] তার স্বামী জিয়াউর রহমানের শাসনকালে তিনি ফার্স্ট লেডি ছিলেন। তিনি বর্তমানে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের (বিএনপি) চেয়ারপার্সন ও দলনেত্রী, যা তার স্বামী জিয়াউর রহমান কর্তৃক ১৯৭৮ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়।

বেগম খালেদা জিয়া

২০১০ সালে খালেদা জিয়া
বাংলাদেশের ১২তম প্রধানমন্ত্রী
কাজের মেয়াদ
১০ অক্টোবর ২০০১ – ২৯ অক্টোবর ২০০৬
রাষ্ট্রপতি শাহাবুদ্দিন আহমেদ
একিউএম বদরুদ্দোজা চৌধুরী
জমিরুদ্দিন সরকার (ভারপ্রাপ্ত)
ইয়াজউদ্দিন আহম্মেদ
পূর্বসূরী লতিফুর রহমান (তত্বাবধায়ক)
উত্তরসূরী ইয়াজউদ্দিন আহম্মেদ (তত্বাবধায়ক)
কাজের মেয়াদ
২০ মার্চ ১৯৯১ – ৩০ মার্চ ১৯৯৬
রাষ্ট্রপতি শাহাবুদ্দিন আহমেদ (অস্থায়ী)
আবদুর রহমান বিশ্বাস
পূর্বসূরী কাজী জাফর আহমেদ
উত্তরসূরী মুহাম্মদ হাবিবুর রহমান (তত্বাবধায়ক)
জাতীয় সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা
কাজের মেয়াদ
২৯ ডিসেম্বর ২০০৮ – ৯ জানুয়ারি ২০১৪
পূর্বসূরী শেখ হাসিনা
উত্তরসূরী রওশন এরশাদ
কাজের মেয়াদ
২৩ জুন ১৯৯৬ – ১৫ জুলাই ২০০১
পূর্বসূরী শেখ হাসিনা
উত্তরসূরী শেখ হাসিনা
বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের চেয়ারপারসন
দায়িত্বাধীন
অধিকৃত কার্যালয়
১০ মে ১৯৮৪ – বর্তমান
পূর্বসূরী জিয়াউর রহমান
জাতীয় সংসদের মেম্বার
কাজের মেয়াদ
২৯ ডিসেম্বর ২০০৮ – ৯ জানুয়ারী ২০১৪
পূর্বসূরী সাঈদ ইস্কান্দার
উত্তরসূরী শিরীন আখতার
সংসদীয় এলাকা ফেনী-১
কাজের মেয়াদ
১ অক্টোবর ২০০১ – ২৯ অক্টোবর ২০০৬
পূর্বসূরী জাফর ইমাম
সংসদীয় এলাকা বগুড়া-৬
কাজের মেয়াদ
২০ মার্চ ১৯৯১ – ১৫ জুলাই ২০০১জমির উদ্দিন সরকার
পূর্বসূরী জাফর ইমাম
উত্তরসূরী সাঈদ ইস্কান্দার
সংসদীয় এলাকা ফেনী-১
বাংলাদেশের ফার্স্ট লেডি
কাজের মেয়াদ
২১ এপ্রিল ১৯৭৭ – ৩০ মে ১৯৮১
রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান
পূর্বসূরী মিসেস খুরশিদ চৌধুরী
উত্তরসূরী রওশন এরশাদ
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম খালেদা খানম পুতুল
১৫ আগস্ট ১৯৪৫ (বয়স ৭৮)[১]
দিনাজপুরব্রিটিশ ভারত
(বর্তমানে বাংলাদেশ)
নাগরিকত্ব ব্রিটিশ ভারত (১৯৪৭ সাল পর্যন্ত)
পাকিস্তান (১৯৭১ সালের পূর্বে)
বাংলাদেশ
জাতীয়তা বাংলাদেশী
রাজনৈতিক দল বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল (১৯৮১–বর্তমান)
অন্যান্য
রাজনৈতিক দল
চার দলীয় জোট (১৯৯৯–২০১২)
বিশ দলীয় জোট (২০১২–বর্তমান)
দাম্পত্য সঙ্গী জিয়াউর রহমান (বি. ১৯৬০–১৯৮১)

সন্তান তারেক রহমান (পুত্র)
আরাফাত রহমান কোকো (পুত্র; মৃত)
মাতা তৈয়বা মজুমদার
পিতা ইস্কান্দার মজুমদার
ধর্ম ইসলাম

বেগম খালেদা জিয়া (জন্ম: আগস্ট ১৫ ১৯৪৫[১][ক]), জন্মগত নাম খালেদা খানম পুতুল, একজন বাংলাদেশি রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব যিনি ১৯৯১-১৯৯৬ সাল এবং ২০০১-২০০৬ সাল পর্যন্ত তিনি প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেছেন। তিনি বাংলাদেশের প্রথম মহিলা প্রধানমন্ত্রী ও প্রধানমন্ত্রী রূপে মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ দেশগুলোর মাঝে দ্বিতীয় মহিলা সরকারপ্রধান (বেনজির ভুট্টোর পর)।[৪][৫] তার স্বামী জিয়াউর রহমানের শাসনকালে তিনি ফার্স্ট লেডি ছিলেন। তিনি বর্তমানে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের (বিএনপি) চেয়ারপার্সন ও দলনেত্রী, যা তার স্বামী জিয়াউর রহমান কর্তৃক ১৯৭৮ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়।

১৯৮২ সালে সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল এইচ এম এরশাদের নেতৃত্বে পরিচালিত সামরিক অভ্যুত্থানের পর থেকে ১৯৯০ সালে সামরিক স্বৈরশাসক হিসেবে এরশাদের পতনের পূর্ব পর্যন্ত খালেদা জিয়া গণতন্ত্রের জন্য চলমান আন্দোলনে নেতৃত্বদানের মাধ্যমে সহায়তা করেন। ১৯৯১ এর নির্বাচনে বিএনপি জয়ী হওয়ায় তিনি প্রধানমন্ত্রী হন। ১৯৯৬-এর স্বল্পস্থায়ী সরকারেও তিনি দায়িত্বপালন করেন,যখন কিনা অন্য দলগুলো উক্ত নির্বাচনকে বর্জন করেছিল। ১৯৯৬ সালের পরবর্তী সাধারণ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসে। খালেদা জিয়ার দল পুনরায় ক্ষমতায় আসে ২০০১ সালে। ১৯৯১, ১৯৯৬ ও ২০০১ সালের নির্বাচনে তিনি নিজস্ব ৫টি সংসদীয় আসনের সবগুলোতেই জয়ী হন। ফোর্বস সাময়িকীর বিশ্বের ১০০ ক্ষমতাবান নারী নেতৃত্বের তালিকায় ২০০৪ সালে জিয়ার অবস্থান ১৪তম,[৬] ২০০৫ সালে ২৯তম,[৭] ও ২০০৬ সালে ৩৩তম।[৮]

২০০৬ সালে তার সরকারের নির্ধারিত শাসনকাল শেষ হওয়ার পর, ২০০৭ সালে নির্ধারিত নির্বাচন রাজনৈতিক সহিংসতা ও অন্তর্দ্বন্দ্বের কারণে বিলম্বিত হয়, ফলশ্রুতিতে তত্ত্বাবধায়ক সরকার কর্তৃক সামরিক পদ্ধতিতে রক্তপাতবিহীন ক্ষমতা অধিগ্রহণ করা হয়। উক্ত সরকারের সময়কালে, খালেদা জিয়া তার দুই সন্তানসহ দুর্নীতির দায়ে অভিযুক্ত হন।[৯][১০][১১]

গত দুই দশকের অধিকাংশ সময়ে, খালেদা জিয়ার প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন আওয়ামী লীগ নেত্রী শেখ হাসিনা। ১৯৯১ সাল থেকে তারা অনুক্রমিকভাবে প্রধানমন্ত্রী হয়ে আসছেন।[১২]

প্রারম্ভিক জীবন

খালেদা জিয়া, ১৯৭৯ সাল

বেগম খালেদা জিয়ার প্রকৃত নাম খালেদা খানম পুতুল। আগস্ট ১৫, ১৯৪৫ সালে দিনাজপুরে তিনি জন্ম গ্রহণ করেন।[১] তিন বোন এবং দুই ভাইয়ের মধ্যে তিনি তৃতীয়। ভাইয়েরা সবার ছোট। তার পিতামহ হাজী সালামত আলী, মাতামহ জলপাইগুড়ির তোয়াবুর রহমান।[১৪] বাবা জনাব ইস্কান্দর মজুমদার এবং মা বেগম তৈয়বা মজুমদার।[১৫] দিনাজপুর শহরের মুদিপাড়া। আদি পৈতৃকনিবাস ফেনী জেলার ফুলগাজী উপজেলার শ্রীপুর গ্রামের মজুমদার বাড়ী। বাবা জনাব ইস্কান্দর মজুমদার ছিলেন একজন ব্যবসায়ী। ইস্কান্দার মজুমদার ১৯১৯ সালে ফেনী থেকে জলপাইগুড়ি যান। বোনের বাসায় থেকে মেট্রিক পাস করেন ও পরে চা ব্যবসায়ে জড়িত হন। ১৯৩৭ সালে জলপাইগুড়িতে বিয়ে করেন। জলপাইগুড়ির নয়াবস্তি এলাকায় ১৯৪৭ সাল পর্যন্ত বসবাস করেন এবং ১৯৮৪ সালের ১৫ নভেম্বর মৃত্যুবরণ করেন। মা বেগম তৈয়বা মজুমদার ছিলেন একান্তভাবে একজন গৃহিণী । তিনি বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গেই থাকতেন।[১৬] [১] খালেদা পাঁচ বছর বয়সে দিনাজপুরের মিশন স্কুলে ভর্তি হন এরপর তিনি দিনাজপুর সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১৯৬০ সালে ম্যাট্রিকুলেশন পাস করেন [১] একই বছর তিনি জিয়াউর রহমানকে বিয়ে করেন। [১৭] এরপর থেকে তিনি খালেদা জিয়া বা বেগম খালেদা জিয়া নামে পরিচিতি লাভ করেন| তিনি স্বামীর সাথে পশ্চিম পাকিস্তান এ বসবাসের পূর্বে ১৯৬৫ সাল পর্যন্ত দিনাজপুরের সুরেন্দ্রনাথ কলেজ এ পড়াশোনা করেন।

তার স্বামী বাংলাদেশের প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি লেফটেন্যান্ট জেনারেল জিয়াউর রহমান বীরউত্তম।১৯৬০ সালের আগস্ট মাসে জিয়াউর রহমানের সাথে তার বিয়ে হয়। জিয়া তখন ছিলেন পাকিস্তান সেনাবাহিনীর একজন ক্যাপ্টেন। ডি এফ আই এর কর্মকর্তা রূপে তখন দিনাজপুরে কর্মরত ছিলেন। তার এক ভাই মেজর(অবঃ) সাঈদ এস্কান্দার বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল থেকে ফেনী-১ আসনের নির্বাচিত সংসদ সদস্য ছিলেন। তার দুই ছেলের মধ্যে বড় তারেক রহমান বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান। তার কনিষ্ঠ ছেলে আরাফাত রহমান কোকো ২০১৫ সালের ২৪ জানুয়ারি মালয়েশিয়ার ইউনিভার্সিটি মালায়া হাসপাতালে হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে মারা যান।[১৮] আরাফাত রহমান একজন ব্যবসায়ী ছাড়াও বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড ও সিটি ক্লাবের সাথে যুক্ত ছিলেন।

স্বামী জিয়াউর রহমানের সাথে খালেদা জিয়া, ১৯৭৯

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *